আমরা যারা

অ্যাকসেস এগ্রিকালচার এমন একদল উৎসাহী মানুষের সমন্বয়ে গড়া সংগঠন যারা কৃষক ও গ্রামীণ ব্যবসায়ের কল্যাণে কৃষিবিষয়ক প্রশিক্ষণ ভিডিও প্রচারে নিবেদিতপ্রাণ।

ভিডিওগুলোকে স্থানীয় ভাষায় তৈরি করতে ও সে-সবের বহুমুখি প্রচার নিশ্চিত করতে অ্যাকসেস অ্যাগ্রিকালচার ২০০ জনের বেশি কমিউনিকেশন পেশাদারের সাথে সমন্বয় করে কাজ করে।

নির্বাহী পরিচালক
জোসেফাইন রজার্স

যুক্তরাজ্যের লেসটার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে গণযোগাযোগ-এ মাস্টার্স ডিগ্রি ও কৃষিবিজ্ঞান-এ ব্যাচেলর ডিগ্রি লাভ করেন। প্রায় ৩৫ বছর ধরে জোসেফাইন পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের কোম্পানি ও প্রতিষ্ঠানের সাথে কৃষি, খাদ্য ও গ্রামীণ উন্নয়ন বিষয়ে বিভিন্ন ইন্টার-এ্যাকটিভ প্রশিক্ষণ প্যাকেজ তৈরি ও ব্যবসার কাজ করছেন, যেগুলো পুরষ্কৃতও হয়েছে। জোসেফাইন অ্যাকসেস এগ্রিকালচারের একজন সহ-প্রতিষ্ঠাতা।

ডিরেক্টর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট
পল ভ্যান মেলে

ওয়্যাগেনিগেন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি করা একজন কৃষিবিজ্ঞানী। দক্ষিণ গোলার্ধজুড়ে ২৫ বছরেরও বেশি সময় ধরে পল কৃষিবিষয়ক ‘রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট’ প্রকল্প নিয়ে কাজ করছেন। ‘কৃষক-থেকে-কৃষক’ প্রশিক্ষণ ভিডিও নির্মাণ, ভিডিও থেকে সৃষ্ট শিখনসমূহের সমন্বিত গবেষণা ও সেগুলোর বিস্তারে পল অগ্রণী ভূমিকা পালন করেছেন। ২০১০ সালে তিনি তাঁর নিজস্ব এন্টারপ্রাইজ ‘সিজিআইএআর’-এর ‘প্রোগ্রাম লিডার লার্নিং অ্যান্ড ইনোভেশন সিস্টেম’ পদে কাজ শুরু করেন। ২০১২ সালে পল তার কাজের প্রভাব আরও বিস্তৃত করতে অ্যাকসেস এগ্রিকালচারের কো-ফাউন্ডার হিসেবে কাজ শুরু করেন।

টিম লিডার - আইসিটি
ইভানা রহমান

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ‘এমবিএ’ এবং ‘ইলেক্ট্রিক্যাল এ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক’ এঞ্জিনিয়ারিং-এ বিএসসি ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি আট বছর ধরে বাংলাদেশের বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানে ব্যবসায় উন্নয়ন ও কমিউনিকেশন বিষয়ে কাজ করছেন। অ্যাকসেস অ্যাগ্রিকালচার-এ যোগদানের আগে তিনি এনজিও ব্র্যাক-এ বাজার জরিপ, ব্র্যান্ড ব্যবস্থাপনা, মিডিয়া ক্যাম্পেইন, নলেজ ম্যানেজমেন্ট এবং ভোক্তা যোগাযোগ [ক্লায়েন্ট ম্যানেজমেন্ট] নিয়ে কাজ করেছেন। প্রোগ্রামিং ল্যাঙ্গুয়েজ ও গ্রাফিক্স সফ্টঅয়্যার বিষয়ে ইভানার ব্যাপক অভিজ্ঞতা রয়েছে।

টিম লিডার - ভিডিও
"ভিডিওস ফর ফার্মার্স" প্রজেক্ট ম্যানেজার
জোনাস ওয়ানভোক

একজন গ্রামীণ উন্নয়ন বিশেষজ্ঞ। তিনি বেনিন-এর এবোমি-কালাভি বিশ্ববিদ্যালয়ে কৃষিবিজ্ঞানে পড়ালেখা করেন এবং নেদারল্যান্ডস-এর ওয়্যাগেনিগেন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি ১৫ বছর ধরে বিভিন্ন সরকারি সংস্থা, এনজিও এবং আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের সাথে কৃষিসম্প্রসারণ ও রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট [আর অ্যান্ড ডি]-এর কাজ করেন। তিনি বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের সাথে কাজ করেছেন যেগুলো গ্রাম পর্যায়ে কৃষি উদ্ভাবন ও উন্নয়নে সহযোগিতা করে। এ ছাড়াও গত দশকে তিনি আফ্রিকার ‘কৃষক থেকে কৃষক’ ভিডিওগুলোর ব্যাপক প্রচারে ব্যাপকভাবে যুক্ত ছিলেন।

রিজিওনাল রেপ্রেজেন্টেটিভ, সাউথ এশিয়া
আহমেদ সালাহউদ্দিন

বাংলাদেশের রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞান বিষয়ে ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি হেগ, নেদারল্যান্ডস-এর ইন্সটিটিউট ফর সোশাল স্টাডিজ থেকে ‘ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ’ বিষয়ে এমএ পাশ করেন। এরপর তিনি দক্ষিণ অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডেলেইড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি লাভ করেন। কৃষিসম্প্রসারণ ও রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট [আর অ্যান্ড ডি]-এ তাঁর ৩০ বছরের অভিজ্ঞতা রয়েছে। পার্টনারশিপ ডেভেলপমেন্ট, ফ্যাসিলিটেশন এবং দক্ষতা উন্নয়ন বিষয়ে জনাব সালাহউদ্দিন শক্ত ভিত নির্মাণ করেছেন। ২০০০ সাল থেকে তিনি বাংলাদেশ, ফিলিপাইন ও ভারতে ‘ইরি’র জন্য কাজ করছেন।

রিজিওনাল রেপ্রেজেন্টেটিভ - পশ্চিম ও মধ্য আফ্রিকা
ফ্লোরেন্ট ওক্রে

বেনিন-এর এবোমি-কালাভি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃষিবিজ্ঞান বিষয়ে পড়ালেখা করেছেন এবং নেদারল্যান্ডস-এর ওয়্যাগেনিগেন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সমাজবিজ্ঞানে পিএইচডি করেন। তিনি ১২ বছর ধরে পশ্চিম আফ্রিকায় বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের সাথে কৃষিসম্প্রসারণ ও রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট [আর অ্যান্ড ডি]-এর কাজ করেন। এ সময় তিনি গ্রামীণ শিখন প্রবর্তন, ‘কৃষক থেকে কৃষক’ প্রশিক্ষণ-ভিডিগুলোর মূল্যায়নসহ বহুমুখি প্রকল্পগুলোতে সহায়তা দান করেন। উন্নয়নের গতিপ্রকৃতি ও আঞ্চলিক জ্ঞান বিষয়ে ফ্লোরেন্টের ব্যাপক আগ্রহ রয়েছে।

রিজিওনাল রেপ্রেজেন্টেটিভ, ল্যাটিন আমেরিকা
জেফ বেন্টলি

অ্যারিজোনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংস্কৃতিক নৃতাত্ত্বিক বিষয়ে পিএইচডি করেছেন। তিনি হন্ডুরাসের একটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় এল জামোরানোতে সাত বছর ধরে প্রাকৃতিক কীটপতঙ্গ নিয়ন্ত্রণ নিয়ে গবেষণা করেছেন। জেফ ল্যাটিন আমেরিকা, আফ্রিকা এবং দক্ষিণ এশিয়ার অনেক দেশে কাজ করেছেন। তিনি বলিভিয়ায় বসবাস করেন এবং কৃষকের পরীক্ষা-নিরীক্ষা এবং স্থানীয় জ্ঞান দ্বারা মুগ্ধ। জেফ অ্যাক্সেস এগ্রিকালচারের স্ক্রিপ্ট রাইটিং শেখায় এবং ভিডিওগুলি কীভাবে কৃষক এবং অন্যদের সৃজনশীলতাকে প্রসারিত করে সে সম্পর্কে অনেকগুলি গবেষণা পত্র লিখেছেন। জেফ ইংরেজি, স্পেনীয়, পর্তুগিজ, ফরাসি এবং কেচুয়া ভাষায় পারদর্শী, তাই তিনি ভাষার গুরুত্ব স্পষ্টভাবে উপলব্ধি করতে পারেন।

রিজিওনাল রিপ্রেজেন্টেটিভ - মেনা অঞ্চল
লরা তাবেট

কানাডার ডালহৌসি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মেরিন ম্যানেজমেন্টে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেছেন। তিনি ছোট আকারের জেলে এবং জেলেদের সম্প্রসারণ সম্পর্কে উত্সাহী। লারা মিশরের ঘোধিধুধ এনজিওর সহ-প্রতিষ্ঠাতা। এনজিওটি পরিবেশগত কৃষি এবং সেখানকার traditionalতিহ্যবাহী খাবার সংরক্ষণে কাজ করে। লারা ২৮ বছর ধরে 'কৃষক থেকে কৃষক' প্রশিক্ষণের ভিডিও তৈরিতে জড়িত এবং এটি মিশরের অ্যাক্সেস এগ্রিকালচারের মূল কেন্দ্র। তিনি উত্তর আফ্রিকা এবং মধ্য প্রাচ্যে আরবি, ফরাসী এবং ইংরেজি-ভাষী শ্রোতাদের জন্য একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরি করতে আগ্রহী।

টিম লিডার - লোকাল এনগেজমেন্ট
মনিটরিং, লার্নিং অ্যান্ড & ইভ্যালুয়েশন অফিসার
নাফিসসাত ফুসেনি বারস

লেগন-এর ঘানা বিশ্ববিদ্যারয় থেকে কৃষি ব্যবস্থাপনায় মাস্টার্স অফ ফিলোসফি ডিগ্রি লাভ করেন। এর আগে তিনি ‘কটোনৌ’-এর বেনিন ইউনিভার্সিটি ইউনিট-এর ক্যাথলিক ইউনিভার্সিটি অফ ওয়েস্ট আফ্রিকা থেকে কৃষিবিজ্ঞান বিষয়ে ‘রুরাল অ্যান্ড অ্যাগ্রিকালচারাল ভেঞ্চার ম্যানেজমেন্ট’ মেজর নিয়ে ব্যাচেলর ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি দুটি ভাষায় স্ব-উদ্যোগী একজন কৃষিবিদ্যার গ্র্যাজুয়েট। তিনি পাঁচ বছর ধরে পুরো পশ্চিম আফ্রিকার বিভিন্ন জাতীয় আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানে শিক্ষকতা, মার্কেট ইনফরমেশন সিস্টেম ও মনিটরিং অ্যান্ড ইভ্যালুয়েশন-এর কাজ করছেন।

গ্লোবাল ট্রান্সলেশন কো-অর্ডিনেটর
কেভিন মুতোঙ্গা

কেনিয়ার এজেরটন বিশ্ববিদ্যালয় ও ‘সিআইএসসিও নেটওয়ার্কিং মডিউলস ইন ট্রাকম কলেজ’-এ ‘ব্যবস্থাপনা বিজ্ঞান’-এ মেজর নিয়ে পড়ালেখা করেন। তিনি আদ্দিস আবাবা ইউনিভার্সিটিতে অ্যাগ্রিকালচার ফ্যাকাল্টি হিসেবে কাজ করেন। কেবিন কৃষকদের জন্য টেকনিক্যাল ট্রেনিং-সমূহের আঞ্চলিক ভাষায় অনুবাদের কজগুলো সমন্বয় করেন। এ ছাড়া, অ্যাকসেস অ্যাগ্রিকালচার পরিচালিত কৃষকদের জন্য প্রশিক্ষণসমূহেও সহায়তা করেন। ভিজুয়াল ও ডিজাইন প্রসেস-এ সৃষ্টিশীলতার কাজে কেবিন-এর ব্যাপক আগ্রহ রয়েছে।

রিজিওনাল ট্রান্সলেশন কো-অর্ডিনেটর(ওয়েস্ট অ্যান্ড সেন্ট্রাল আফ্রিকা)
অলিভিএর জিবিটান

বেনিন এর ইন্সটিটিউট অফ মিডিয়া অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট থেকে ‘মিডিয়া টেকনিশিয়ান’ হিসেবে পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন ডিপ্লোমা করেন। তিনি বেনিন-এর সোংহাই সেন্টারে ভিডিও এডিটর হিসেবে তিন বছর কাজ করেন। অলিভার, পশ্চিম এবং মধ্য-আফ্রিকায় ভিডিওসমূহ আঞ্চলিক ভাষায় অনুবাদের কাজে সহায়তা ও সমন্বয় করে থাকেন, এবং অ্যাকসেস অ্যাগ্রিকালচারের পার্টনারদের ‘কৃষক থেকে কৃষক প্রশিক্ষণ ভিডিও’ নির্মাণে সহায়তা করেন। ভিডিওর মাধ্যমে ‘কৃষির ভালো চর্চা’সমূহের প্রচারের ব্যাপারে তিনি বিশেষভাবে আগ্রহী।

এন্টারপ্রেনার কোচ কো-অর্ডিনেটর
জেন নালেঙ্গা

জেন নালেঙ্গা উগান্ডার ম্যাকেরেরি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কৃষি-অর্থনীতি বিষয়ে এমএসসি ডিগ্রি অর্জন করেন, বিশেষত জৈব-কৃষি বিষয়ে। বৈজ্ঞানিক, অর্থনৈতিক এবং আর্থ-সামজিক পরিপ্রেক্ষিতে খাদ্য ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে দারুণ বোঝাপড়া রয়েছে তাঁর। কৃষি-উৎপাদন ও বিপণন পদ্ধতি ব্যবস্থাপনা এবং মূল্যায়ন ও প্রশিক্ষণে তাঁর বিশ বছরের অভিজ্ঞাতা রয়েছে। তিনি উগান্ডার জাতীয় কৃষি-আন্দোলনের (NOGAMU) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, কর্মসূচি প্রধান এবং সিনিয়র প্রশিক্ষণ কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করছিলেন। জেন এন্টারপ্রেনার্স ফর রুরাল অ্যাকসেস (ইআরএ) কর্মসূচির সমন্বয় করেন। তিনি অ্যাকসেস এগ্রিকালচার আঞ্চলিক ইআরএ প্রশিক্ষকদের তদারকি করনে এবং প্রশিক্ষণ উপকরণ ও প্রশিক্ষণ পাঠ্যক্রম উন্নয়ন সমন্বয় করেন। 

এন্টারপ্রেনার কোচ
জাস্টিন টোভিলোড 

জাস্টিন একজন কৃষি-অর্থনীতিবিদ। তিনি বেনিন রিপাবলিকের পারাকু বিশ^বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করেছেন। গ্রামীণ উন্নয়নে তার রয়েছে আট বছরের অভিজ্ঞতা, বিশেষত যুব-উদ্যোক্তা বিষয়ে বিভিন্ন স্থানীয় এনজিও এবং আন্তর্জাতিক অনেক সংস্থার সাথে তিনি কাজ করেছেন। সেগুলোর মধ্যে বিদ্বআরএনই ফোনডেন, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল এবং ক্যাথলিক রিলিফ সার্ভিস অন্যতম। তিনি খামার-ব্যবসা ব্যবস্থাপনা, ব্যবসা পরিকল্পনা এবং টেকসই কৃষিজমি ব্যবস্থাপনা প্রকল্পের খসড়া প্রণয়ন ও পরিচালনার সাথে যুক্ত ছিলেন। তিনি ক্ষুদ্র কৃষকদের ঋণ পেতে এবং বাজারে প্রবেশ করতে সুযোগ করেন এবং তরুণ উদ্যোক্তাদের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উন্নয়নের প্রশিক্ষণ  দেন।     
 

এন্টারপ্রেনার কোচ
শ্যারন অ্যাগেইন

শ্যারন কোস্টারিকার ‘আর্থ’ বিশ^বিদ্যালয় থেকে বিএসসি ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি একজন সামাজিক উদ্যোক্তা এবং জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি সংস্থায় পরামর্শক হিসেবে কাজ করেন। শ্যারন আফ্রিকার মাস্টারকার্ড ফাউন্ডেশন প্রোগ্রাম-এর অংশ হিসেবে ফান্ড ফর রুরাল প্রোসপারেটি-এর উপদেষ্টা কমিটির একজন সদস্য ছিলেন। তিনি আফ্রিকার আইসিসিও-এর কৃষি-ব্যবসা উদ্ভাবনী চ্যালেঞ্জ ফান্ড ২০১৫-এর অন্যতম কৃষি উপদেষ্টা এবং যুব-কৃষি-ব্যবসা নেটওয়ার্ক-এর বোর্ড সদস্য ছিলেন। ২০১০ সালে এশিয়া, আফ্রিকা ও লাতিন আমেরিকার জন্য অনুষ্ঠিত বিআইডি নেটওয়ার্কের ‘ব্যবসায়ে নারী প্রতিযোগাতা’য় (উইমেন ইন বিজনেস কম্পিটিশন) বিজয়ী পাঁচজনের মধ্যে তিনি একজন। শ্যারন বিশ্বাস করেন যে, সময়মতো নির্ভরযোগ্য তথ্য পেলে কৃষকেরা সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে এবং লাভজনকভাবে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারে।  

এন্টারপ্রেনার কোচ
ভিনজেরু নাইরেন্দা

ভিনজেরু মালাউই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অ্যাকুয়াকালচার এবং ফিশারি বিজ্ঞানে বিএসসি ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি জার্মানির ওয়েইনস্টেফেন ইউনিভার্সিটি অব অ্যাপলায়েড সায়েন্স থেকে ফুডভ্যালু চেইন বিষয়ে  স্নাতকোত্তর সনদ লাভ করেন। তিনি কৃষক, উদ্যেক্তা, সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং এসএমই বিষয়ে সরকারি ও বেসরকারি খাতে পাঁচ বছরেরও বেশি সময় ধরে কাজ করছেন। তিনি জিআইজেড, ইউএসআইডি, ডিএফআইডি-এর অর্থায়নে পরিচালিত এবং নানাবিধ সরকারি প্রকল্পে কাজ করেছেন। ভিনরুজ উদ্যোক্তাদের তাদের সম্ভাবনা উপলবদ্ধি করতে এবং নিজেদের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য ও অভীষ্ট অর্জনে কঠোর পরিশ্রম করতে এবং সংকল্পে দৃঢ় থাকতে সহায়তা প্রদান করার জন্য প্রতিনিয়ত সংগ্রাম করে চলেছেন।   

আইসিটি অফিসার
রামা ভেঙ্কাত্রামা্ন

ভারতের মাদুরাই থেকে কমুজার বিশ্ববিদ্যালয়ে অর্থনীতিতে বিএ এবং ভারতের হায়দ্রাবাদ থেকে বিদ্যা ভবনে সিস্টেম ম্যানেজমেন্ট এবং বিজনেস ম্যানেজমেন্টে স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা লাভ করেন। সৃজনশীল এবং প্রযুক্তিগত দক্ষতার এক অনন্য মিশ্রণের সাথে, রামানের ওয়েব ডিজাইন, ভিডিও এবং অডিও প্রডাকশন, ফটোগ্রাফি, মুদ্রণ এবং ডিজিটাল মার্কেটিং বিষয়ে বহুমুখী দক্ষতা রয়েছে। তিনি আফ্রিকা রাইসে ওয়েবমাস্টার (2002-2013) এবং মাল্টিমিডিয়া ডিজাইনার (2014-2019) ছিলেন। তিনি বর্তমান ডিজিটাল এবং সামাজিক মিডিয়া সরঞ্জাম এবং কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম সহ সফ্টওয়্যার প্যাকেজগুলিতে দক্ষ।

লোকাল ইঙ্গেজমেন্ট লিয়েজন অফিসার
অ্যালিস নেজারি এনগিয়েথ

এগারটন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কম্পিউটার বিজ্ঞানে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন, তার আইসিটি এবং কৃষি বিষয়ে কজের অভিজ্ঞতা রয়েছে। তিনি কেনিয়া জাতীয় কৃষক ফেডারেশনের সাথে প্রকল্প এবং প্রোগ্রাম বাস্তবায়ন, জ্ঞান পরিচালনা, ডকুমেন্টেশন, কন্টেন্ট ডেভেলপমেন্ট এবং সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলির পরিচালনাতে কাজ করেছেন। তিনি স্থায়ী কৃষির বিকাশ এবং জীবিকা নির্বাহের জন্য অভিজ্ঞতা শেয়ারের জন্য নেটওয়ার্কিংয়ে বিশ্বাসী।

ভিডিও স্পেশালিস্ট
মার্সেলা ভ্রোলিক্স

বেলজিয়ামের হাসেল্টে আর্টস একাডেমি থেকে গ্রাফিক ডিজাইনে এমএ করেছেন, পরে তিনি ভিডিও প্রযোজনায় আরও দক্ষতা অর্জন করেছেন। মার্সেলা আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলির জন্য অসংখ্য উচ্চমানের পুরষ্কারপ্রাপ্ত কৃষক থেকে কৃষকের ভিডিও তৈরি করেছে। ১০ বছরেরও বেশি সময় ধরে তিনি স্থানীয় কৃষকদের জন্য উন্নতমানের ভিডিও তৈরির প্রশিক্ষণে জড়িত ছিলেন। মার্সেলা তার ক্যারিয়ারের বেশিরভাগ অংশ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, পশ্চিম আফ্রিকা, দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় কাজ করেছেন।

গণমাধ্যম অফিসার
সাভিত্রী মহাপাত্র

ভারতের জওহরলাল নেহেরু বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফরাসী ভাষায় এমএ করেছেন এবং ভারতীয় বিদ্যা ভবন থেকে সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগে স্নাতকোত্তর ডিপ্লোমা করেছেন। সাবিত্রি কৌশলগত কমুইনিকেশন, স্টেকহোল্ডারদের পরিচালনা, বিজ্ঞানে লেখালেখি, গল্প বলার এবং আফ্রিকা ও ভারত জুড়ে উন্নয়নের জন্য কৃষি গবেষণার সম্পর্কিত বিষয়বস্তু বিকাশে ২৫ বছরেরও বেশি অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন। তিনি ১৯৯৬ থেকে ২০০২ পর্যন্ত আইসিআরএসএটি-তে জনসচেতনতায় অবদান রেখেছিলেন এবং ২০০২ থেকে ২০১৯ পর্যন্ত আফ্রিকা রাইসে কৌশলগত যোগাযোগের নেতৃত্ব দেন। সাবিত্রী স্থায়ী কৃষি, খাদ্য ও পুষ্টি সুরক্ষা, জেন্ডার  সচেতনতা এবং কৃষকের ক্ষমতায়নে আগ্রহী।

কমিউনিকেশনস স্পেশালিস্ট
ফিল মেলন

একজন জিওগ্রাফার এবং বিবিসি রেডিও-র একজন প্রাক্তন ব্রডকাস্টার। প্রায় ৩৫ বছরের উপরে তিনি প্রাক্তন সোভিয়েত ইউনিয়ন, মধ্যপ্রাচ্য, আফ্রিকা ও এশিয়ার ঊর্ধতন সরকারি কর্মকর্তাদের কমিউনিকেশনস বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন। কমিউনিকেশনকে আরও কার্যকরভাবে কাজে লাগাতে তিনি বিভিন্ন শিল্পকারখানার পেশাদারদের সাথে কাজ করেছেন। ফিল তার কৃষি, স্বাস্থ্য, খাদ্য ও গ্রামীণ উন্নয়নের কমিউনিকেশন কৌশল তৈরিতে সহায়তা করার বিশেষজ্ঞ-জ্ঞান অ্যাকসেস অ্যাগ্রিকালচার-এ প্রয়োগ করে থাকেন। তিনি এ প্রতিষ্ঠানের একজন সহ-প্রতিষ্ঠাতাও বটে।

অফিস ম্যানেজার(নাইরোবি)
জুডি মুটুরি

অ্যাকসেস অ্যাগ্রিকালচারের ফাইন্যান্স দেখাভালের কাজ করেন। নাইরোবি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কমার্স [অ্যাকাউন্টিং অপশন] নিয়ে ব্যাচেলর ডিগ্রি করার পাশাপাশি তাঁর কেনিয়ার বিভিন্ন অগ্রগামী ব্যাংক-এর সাথে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে। বর্তমানে তিনি একটি ছোটো প্রতিষ্ঠানের অংশ হিসেবে কাজ করার চ্যালেঞ্জ-সমূহ উপভোগ করছেন, কিন্তু তিনি দৃঢ়প্রতিজ্ঞ যাতে অ্যাকসেস অ্যাগ্রিকালচার-এর উদ্যোগসমূহ কৃষকদের সহায়তায় আসে। জুডি তার নিয়ন্ত্রণে একইসাথে নাইরোবি অফিসের কার্যক্রমও পরিচালনা করেন।

এ্যাসিসটেন্ট অফিস ম্যানেজার(নাইরোবি)
রিচার্ড এনডিব্যরু

ফাইন্যান্স ও প্রশাসনের সকল কাজে জুডি মুটুরিকে সহায়তা করেন। তিনি নাইরোবি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতি ও গণিতে ব্যাচেলর ডিগ্রি লাভ করেন, এবং ‘সার্টিফায়েড পাবলিক এ্যাকাউন্টস’ [সিপিএ] নিয়ে পড়ালেখা করেন। অ্যাকসেস অ্যাগ্রিকালচার-এ যোগদানের আগে তিনি বিভিন্ন প্রাইভেট প্রতিষ্ঠানের অ্যাকাউন্টস ও প্রশাসন বিভাগে কাজ করেন।

অফিস ম্যানেজার (কোটোনৌ)
ইনাগনন জযি

বেনিন এর এবোমি-কালাভি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ব্যবস্থাপনা বিষয়ে ব্যাচেলর ডিগ্রি লাভ করেন। তিনি বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সেক্টরে দীর্ঘদিন কাজ করেছেন। কৃষিতে আগ্রহী হওয়ায় তিনি অর্গানিক ও ইকোলজিক্যাল অ্যগ্রিকালচার, হিউম্যান নিউট্রিশন ও ফ্যামিলি অ্যাগ্রিকালচার বিষয়ে বিভিন্ন কনফারেন্সে অংশ নিয়েছেন। ইনাগনন বেনিন-এর কোটোনৌ-তে অবস্থিত ওয়েস্ট অ্যান্ড সেন্ট্রাল অফ্রিকার আঞ্চলিক অফিসের অ্যাকাউন্টিং ও প্রশাসন-ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব পালন করেন।

ক্যাটাগরিসমূহ

Designed & Built by Adaptive - The Drupal Specialists